রাবি আইবিএ-র ৫ম গ্রাজুয়েশন অনুষ্ঠিত

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়, ৮ ডিসেম্বর ২০১৮:
আজ শনিবার রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় ব্যবসায় প্রশাসন ইনস্টিটিউট (আইবিএ)-র ৫ম গ্রাজুয়েশন অনুষ্ঠিত হয়। এদিন সকাল ১০টায় ইনস্টিটিউট চত্বরে অনুষ্ঠিত এই গ্রাজুয়েশনে প্রধান অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের (বিমক) চেয়ারম্যান প্রফেসর আব্দুল মান্নান। এতে বিশেষ অতিথি ছিলেন বিমক সদস্য প্রফেসর এম শাহ্ নওয়াজ আলী, বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য প্রফেসর চৌধুরী মো. জাকারিয়া ও কোষাধ্যক্ষ প্রফেসর এ কে এম মোস্তাফিজুর রহমান আল-আরিফ। বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য প্রফেসর এম আব্দুস সোবহানের সভাপতিত্বে এই অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তৃতা করেন ইনস্টিটিউটের পরিচালক প্রফেসর এ কে শামসুদ্দোহা ও বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার প্রফেসর এম এ বারী সেখানে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন।
অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণকারী ১২টি ব্যাচের প্রতিটির পরীক্ষায় শীর্ষ স্থান অধিকারী ১২ জন স্নাতককে প্রধান অতিথি স্বর্ণপদকে ভূষিত ও উপাচার্য তাদের সনদপত্র প্রদান করেন।
এই অনুষ্ঠানের মাধ্যমে এক্সিকিউটিভ এমবিএ, এমবিএ ইভিনিং, এমবিএ ডে ও এমবিএ ফর বিবিএ গ্রাজুয়েট্স কোর্সের মোট ৪৩৪ জনকে গ্রাজুয়েশন প্রদান করা হয়। প্রসঙ্গত, ২০০০ সালে প্রতিষ্ঠিত এই আইবিএ বাংলাদেশে দ্বিতীয় ব্যবসায় প্রশাসন ইনস্টিটিউট।
অনুষ্ঠানে বিমক চেয়ারম্যান তাঁর বক্তৃতায় বলেন, প্রতিযোগিতামূলক উন্মুক্ত অর্থনীতির যুগে দক্ষ জনবল সৃষ্টির মাধ্যমে দেশের সামগ্রিক উন্নয়নে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের ব্যবসায় প্রশাসন  ইনস্টিটিউট গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখছে। বিশ্বায়নের এই যুগে বিশেষায়িত শিক্ষার বিকল্প নেই। এই আইবিএ বাংলাদেশে ব্যবসা ও বাণিজ্য শিক্ষার সেন্টার অব এক্সলেন্স হিসেবে সেই চাহিদা পূরণ করছে। আইবিএ এমন একটি প্লাটফর্ম যার মাধ্যমে দেশের চাহিদার প্রতিফলন ঘটিয়ে ইতিবাচক ভূমিকা রাখছে।
তিনি আরো বলেন, বাংলাদেশ আজ বিশ্বের ৩৭তম অর্থনীতি। ২০৪১ সালে এই স্থান হবে ২৬তম। তখন আমাদের অবস্থান হবে অস্ট্রেলিয়া, মালয়েশিয়ার উপরে। আগামী ২০২১ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে মধ্যম আয়ের দেশে এবং ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত দেশে পরিণত করার জন্য বর্তমান সরকারের নেতৃত্বে যে নিরন্তর উন্নয়নযজ্ঞ চলছে তার কাক্সিক্ষত লক্ষ্যে পৌঁছাতে হলে আমাদের দক্ষ মানব সম্পদ তৈরি খুবই প্রয়োজন। আর এই মানব সম্পদ তৈরিতে ব্যবসায় প্রশাসনকেন্দ্রিক বিদ্যাচর্চায় আইবিএ অন্যতম ভূমিকা পালন করছে। আমাদের দক্ষ কর্মী তৈরির পাশাপাশি উদ্যোক্তাও তৈরি করতে হবে। তৈরি করতে হবে সৎ ও দেশপ্রেমিক নেতৃত্ব। আমরা সেই প্রত্যয় নিয়ে এগিয়ে যেতে চাই। জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ার গর্বিত অংশীদার হতে চাই। আর সেই স্বপ্ন পূরণের অন্যতম কারিগর হবে আইবিএ’র  স্নাতকরা।
অতিথিবৃন্দ আধুনিক প্রযুক্তি ও যুগোপযোগী কোর্স-কারিকুলামের মাধ্যমে মানসম্মত শিক্ষা ও গবেষণা নিশ্চিত করে সকল ক্ষেত্রে সমতা এনে দেশ-জাতি-সমাজের স্বপ্নপূরণে সংশ্লিষ্ট সকলকে একসাথে কাজ করার আহ্বান জানান।

প্রফেসর প্রভাষ কুমার কর্মকার
প্রশাসক


All rights reserved © ICT Center, Unversity of Rajshahi 2016.
webmaster@ru.ac.bd